Main Menu

অবরোধের নামে গাছকাটা। প্রকৃতির সাথে নিষ্ঠুর পরিহাস

+100%-

খ.ম.হারুনুর রশীদ ঢালী : গত মঙ্গলবার থেকে টানা ৪৮ ঘন্টা ১৮ দলের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহ কসবা উপজেলার বিভিন্নস্থানে অবরোধ অব্যাহত রেখে চলেছে ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা। দ্বিতীয় ও আবার ডাকা তৃতীয় দিনে অবরোধকারীরা সারা দেশের ন্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা সহ বিভিন্ন উপজেলায় ব্যাপক গাছ কাটে। বৃক্ষ নিধনের এ বিষয়টি ছিল টক অব দ্যা কসবা । সবুজ বাংলার সবুজ বৃক্ষ গুলো এমনি ভাবে কেটে দিয়ে রাস্তা অবরোধ করার বিষয়টি ছিল শরীরে মনকাটা বিধার মত।

কাটা গাছের গুড়াগুলো যেন খোলা আকাশের নিচে পাথরের মত দাঁড়িয়ে আছে। গাছ কাটা দৃশ্য গুলো দেখলে সকলের মন কাদেঁ। পথ যাত্রীরা বলছে অবরোধের পিকেটাররা কত নিষ্ঠুর,কত পাষাণ মনের মানুষ। কত কঠিন মনের মানুষ হলেই এই জঘ্যতম কাজটি করতে পারে। গাছ প্রেমিক আর সচেতন সমাজ বলছে, আধুনিক গণতন্ত্রের জনক আবরাহাম লিঙ্কন বলেছেন Government by the people, of the people, for the people.

কিন্ত বর্তমানে আমরা গণতন্ত্রের এ কোন রূপ দেখছি ? জনগণ যা চায় না তা-ই পাচ্ছে আর পাবলিকের চাওয়া জমা হচ্ছে স্বপ্নের মনিকোঠায়। আর গণতন্ত্র নামের যে বিষ বড়ি পাবলিককে গেলানো হলো তাদের অধিকারের কথা বলে,তাদের চাওয়া-পাওয়ারই প্রতিফলন ঘটাবে বলে যে প্রতিশ্র“তি দেওয়া হয়েছে তার কোনটাই দিতে পারে নাই তথাকথিত গণতন্ত্র। তাই বর্তমান সময়ে সারা দেশের ন্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা-আখাউড়ার যত সবুজ গাছ কাটা হয়েছে এমন ঘটনা সারা দেশে কোথাও হয়নি। এক কথা হরতাল,অবরোধের নামে অরাজকতা চাই না,চাই জীবন বাঁচাও,পরিবেশ বাাঁচাও এই শেলাগানে মধ্যে দিয়ে সবুজ বৃক্ষ গুলোর নিধন আর চাই না।এই সবুজ গাছ গুলো বাঁচাতে স্থানীয় প্রশাসন চিড়নি অভিযানে মাঠে নেমেছেন।আর পিকেটারদেও হাত থেকে সবুজ গাছ গুলোকে বাঁচাতে কসবা-আখাউড়ায় একাধিক মামলাও হয়েছে । পুলিশ,র‌্যাব,বিজিবি সদস্যদের এই যৌথ চিড়নি অভিযানে এই গাছ কাটা কমে আসছে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares