Main Menu

২৪ দিন পর কবর থেকে যুবকের লাশ উত্তোলন

+100%-

মোহাম্মদ মাসুদ ,সরাইল থেকে :ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে দাফনের ২৪ দিন পর কবর থেকে মোঃ মাসুম মিয়া (২৪) নামের এক যুবকের লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। কবরে সে জীবিত আছে মায়ের এমন স্বপ্নের কারনেই গতকাল বুধবার বাদ আছর উচালিয়া পাড়া গ্রামের কবরস্থানে তার কবর খুঁড়ে লাশ উত্তোলন করে স্বজনরা। দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে তাড়াহুড়া করে মাটি দিয়ে ঢেকে দ্রুত কবরস্থান স্থান ত্যাগ করেন সকলে। এ ঘটনায় সমগ্র সরাইলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় লোকজন ও মাসুমের পারিবারিক সূত্র জানায়, ইলেকট্রিক মিস্ত্রী মাসুম সদর উপজেলার উচালিয়া পাড়া গ্রামের ইদন মিয়ার ছেলে। তারা তিন ভাই এক বোন। মাসুম দ্বিতীয়। গত ৩ নভেম্বর বিদ্যুতের কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুত স্পৃষ্ট হয়ে মারা যায় মাসুম। সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে তাকে দাফন করা হয়। অতিসম্প্রতি তার মা আঙ্গুরা বেগম (৪৮) ও অন্ত:সত্তা স্ত্রী স্বপ্নে দেখেন মাসুম কবরে জীবিত আছে। স্বপ্নের বিষয়টি তারা সকল স্বজনদের জানান। মা ও স্ত্রী সহ সকলেই কবর খুঁড়ে দেখার জন্য ব্যকুল হয়ে পড়েন। তাদের পছন্দের কিছু মাওলানার সাথে পরামর্শ ও করেন। পরে সিদ্ধান্ত নেন কবর খুঁড়ে মাসুসের লাশ উত্তোলনের। বড্ডা পাড়া গ্রামের বাসিন্ধা দাখিল পরীক্ষার্থী মোঃ সাইফুল্লাহ জিলান, মোঃ এরশাদ হোসাইন সহ কয়েকজন প্রবীন লোকের উপস্থিতি ও সহযোগীতায় গতকাল বাদ আছর কবর খুঁড়তে শুরু করেন। এ সময় কবরস্থানের আশপাশে সহ¯্রাধিক উৎসুক নারী পুরুষ ঘটনাটি স্বচোক্ষে অবলোকন করছিল। কবরের মাটি সরিয়ে ৩/৪ টি বাঁশের কঞ্চি উত্তোলনের পরই চারিদিকে দূর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। তখন তারা নিশ্চিত হয়েছেন কবরে মাসুম জীবিত নেই। মোঃ সাইফুল্লাহ জিলান লাশ উত্তোলনের কথা স্বীকার করে বলেন, আমি কোন মাওলানা নয়। জীবিত আছে কিনা তা দেখার জন্য কবর খুঁড়েছিলাম। বাঁশের কঞ্চি উঠানোর পঁচা গন্ধ বের হওয়ায় কাজ বন্ধ করে দেয়। সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আলী আরশাদ বলেন, স্বপ্নে দেখে লাশ উত্তোলন করা এটা কুসংস্কার। সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, আদালতের অনুমতি ছাড়া দাফনের পর এভাবে লাশ উত্তোলন করা আইন পরিপন্থী কাজ।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares