Main Menu

১২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডারকে স্বশরীরে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য বলেছে হাইক

+100%-
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালীকচ্ছের বিজিবি ১২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লে. কর্ণেল মুস্তাফিজুর রহমানকে স্বশরীরে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য বলেছে হাইকোর্ট। উচ্চ আদালত তাঁর বিরুদ্ধে প্রসিডিং গ্রহণ করেছেন। একই সঙ্গে তাঁর বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না মর্মে আগামী ৩ মে তারিখে তাঁকে স্বশরীরে আদালতে হাজির হয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে। গত ২৫ এপ্রিল বুধবার বিচারপতি এ.এইচ.এম. শামসুদ্দিন চৌধুরী এবং বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ আদালত অবমাননা মোকদ্দমা কন্টেম্পট পিটিশন (নং ১২২/২০১২) শুনানীতে এই আদেশ দেন।
এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সরাইল উপজেলার কালীকচ্ছ গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হামিদ গত ২৬ ফেব্র“য়ারি হাইকোর্টে বিজিবি ১২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লে. কর্ণেল মুস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে একটি রিট পিটিশন (নং ১৬৮৪/২০১২) দায়ের করেন। আদালতের পিটিশনে উল্লেখ, বিজিবি ১২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লে. কর্ণেল মুস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে কতেক জওয়ান মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হামিদের বসতবাড়ির জায়গা দখল করে দোকানপাট নির্মাণের জন্য নির্মাণ সামগ্রী স্তুপীকৃত করেন।
সূত্র জানায়, উচ্চ আদালত সন্তুষ্ট হয়ে বিজিবি ১২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লে. কর্ণেল মুস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন। ওই আদেশে ক্ষিপ্ত হয়ে ১২ বিজিবি’র কর্মকর্তা মুস্তাফিজুর রহমান কতেক জওয়ানসহ মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হামিদের বসতবাড়িতে সশস্ত্র হামলা চালায়। তখন সরাইল উপজেলা চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় জনগণ বাঁধা দিতে গেলে বিজিবি জওয়ানরা নির্বিচারে জনগণকে প্রহার করে। এতে প্রায় ৫০ জন লোক আহত হয়। এসময় ছবি তুলতে গেলে বিজিবি জওয়ানরা ৫ জন সাংবাদিককে প্রহার করাসহ তাদের ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়। উপরোক্ত বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হামিদ বিচারপতি এ.এইচ.এম. শামসুদ্দিন চৌধুরী এবং বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে আদালত অবমাননা মোকদ্দমা কন্টেম্পট পিটিশন আনয়ন করলে বেঞ্চ গত ২৫ এপ্রিল বুধবার শুনানী শেষে এই আদেশ দেন।
পিটিশনারের পক্ষে রিটটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন, অ্যাডভোকেট ফারুক আলমগীর চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট সুলতানা ফৌজিয়া ইয়াসমিন। রেসপনডেন্ট পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট এ.এ.জি. ইয়াদিয়া। প্রেস বিজ্ঞপ্তি




(পরের সংবাদ) »



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares