Main Menu

কসবায় অনিয়মের অভিযোগে মাদ্রাসা সুপার আটক

+100%-
কসবা প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার কুটি ইউনিয়নের আজগর আলী দাখিল মাদরাসার সুপার  মোহাম্মদ আবদুর রহমান সরকারকে নানাহ অনিয়মের কারণে আটকসহ স্থানীয় প্রশাসন কসবা থানা পুলিশের হাতে দিয়েছেন।
২ডিসেম্বর ২০১৯ইং সোমবার বিকালে উপজেলা উপবৃওি কর্মকর্তা আবু জাফর আহম্মদের দায়ের করা মাদরাসার পরীক্ষা অতিরিক্ত অর্থ আদায়,নারী কেলেংকারী, মাদরাসায় দীর্ঘদিন পরিচালনা কমিটি বিহীন টাকা উওলোনসহ নানাহ অনিয়মের বিষয়ে কসবা থানায় সাধারণ ডাইরিভুক্ত করেন।
এই অভিযোগের ভিওিতে কসবা উপজেলা নির্বাহী  অফিসার মাসুদ উল আলম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড,রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবন, কসবা থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ লোকমান হোসেন সরেজমিনে তদন্তসহ পরিদর্শন করেন।
এলাকাবাসী মাদরাসার সুপারের কক্ষে আটকিয়ে রাখা  মোহাম্মদ আব্দুর রহমান সরকারকে উদ্ধার করেন এবং প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদে সুপার সুউওর দিতে না পারায় আর জনতার কবল থেকে জানমাল রক্ষা করতে পুলিশের হেফাজতে অবশেষে কসবা থানায় নিয়ে আসেন।
কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান এড.রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবন টেলিভিশন সাংবাদিকদেরকে জানান,অভিযোগ জানতে পেরেই আমি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ উল আলমকে সাথে নিয়ে দ্রুত এসে দেখি ছাত্রসহ এলাকাবাসী তাকে সুপারের রুমে সুপারকে আটকিয়ে রাখেন। তার অনিয়মের সত্যতা পাওয়া গেছে। দেশের প্রচলিত আইন মোতাবেক তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য যে, ১৯৯৩ সালে উক্ত মাদরাসাটি প্রতিষ্ঠিত ও ১৯৯৫সালে এমপিও ভুক্ত হয়। কিন্ত দীর্ঘ দিন মাদরাসার পরিচালনা কমিটি বিহীন চলার বিষয়টি জনমনে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন।
উপস্থিত সচেতনমহল জানান, কিভাবে প্রশাসনের নাকের ডগায় পরিচালনা কিমিটি বিহীন মাদরাসার ১৬ জন শিক্ষকের বেতন ভাতা উওলোন করা হয়েছে।
অপরদিকে উপজেলা চেয়ারম্যান আরও জানান মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সংসদ সদস্য ছাত্র বন্ধু মিয়া আব্দুল্লাহ ওয়াজেদ মোবাইলে জানান সুপার পরিচালনা কমিটি ছাড়াই আমাকে না জানিয়ে মনগড়া কাজ করে চলেছেন।
এই দিকে কসবা উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি অফিস তথ্য সূত্রে জানতে পারেন যে আজগর আলী দাখিল মাদরাসার বেতন, স্কেল ও গ্রেড তালিকার খবরটি। নিম্নে পরিসংখ্যান দেখুন।
উক্ত মাদরাসার ১৬ জন শিক্ষকের মাসিক বেতন যথাক্রমে সুপার-২৯০০০ হাজার(৭গ্রেড), সহ-সুপার- ২৩০০০(৮গ্রেড), সহ:শিক্ষক:২২০০০ হাজার (৯গ্রেড)-৩জন,সহ শিক্ষক মৌ:১৬০০০ (১০গ্রেড) -৩জন, সহ শিক্ষক-১২৫০০ (১১গ্রেড-১জন), ইব:জু:শি:১০২০০(১৪ গ্রেড- ২জন) , ইব:জু:শি:-৯৭০০(১৫গ্রেড-৩জন), নিম্নমান সহকারী:-৯৩০০(১৬ গ্রেড-১জন), এম,এম,এস,এস-৮৫০০(১৭ গ্রেড-২জন)। মোট ২৬ জন সুপারসহ শিক্ষক,শিক্ষিকা ও কর্মচারী।
গত ২৫ নভেম্বর কসবা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের বিশেষ বধির্ত সভায় প্রধান অতিথি কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান রাশেদুল কাওছার ভূইয়া জীবন  বলেছিলেন,কোনো দুনীর্তির সাথে আপোষ করা হবে না ঘোষণা দিয়ে আরও বলেন  স্কুল কলেজের অনিয়ম ছাড় দেওয়া হবে না। তাই সোমবার বিকাল থেকেই স্থানীয় প্রশাসনকে সাথে নিয়ে মাঠে নেমেছেন বলে তিনি কসবা উপজেলা প্রেসক্লাবকে জানান।
‘শিক্ষা কর্মকর্তা আবু জাফর আহাম্মদকে উপস্থিত সকলের সামনে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন,আপনি কসবায় দীর্ঘ চার বছর ধরে অবস্থান করছেন কিন্ত মাদরাসার পরিচালনা কমিটি বিহীন বেতন ভাতা  কিভাবে উওলোন করেছেন এবং এই দায়ভার থেকে আপনি কি ভাবে রক্ষা পাবেন তিনি জবাব দিলেও তার সঠিক জবাব দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে সচেতনমহল তাও জানান।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares