Main Menu

আশুগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামাল পাচারের সময় মালামাল সহ তিন ট্রাক ও চালক আটক

+100%-

প্রতিনিধি:ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪৫০ মেগাওয়াট (নর্থ) প্রজেক্টের অতিরিক্ত মালামাল রাতের আধারে পাচারের সময় তিন ট্রাক গ্যাস পাইপ ও তিন ট্রাক চালককে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে উপজেলার আশুগঞ্জ বন্দর এলাকা থেকে একটি ও বাহাদুরপুর এলাকা থেকে ট্রাক দুটি সহ মোট তিনটি ট্রাক ও চালকদের আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। এদিকে অভিযোগ উঠেছে নতুন এই ইউনিটের প্রকল্প পরিচালক ক্ষিতিশ চন্দ্র বিশ্বাসের যোগসাজশে এই মালামালগুলি রাতের আধারে পাচার হচ্ছিল। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

আশুগঞ্জ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকালে আশুগঞ্জ নৌবন্দর এলাকায় একটি ট্রাকে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অতিরিক্ত চুরির মালামাল রয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ বিকালে অভিযান চালায়। এসময় বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামল সহ ট্রাকটিকে আটক করেছে পুলিশ। এদিকে বুধবার রাত সাড়ে ১১ টার সময় আশুগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে দুটি ট্রাকে করে মূল্যবান গ্যাস পাইপ পাচার করা হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের উপজেলার বাহাদুরপুর এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় মালামালের বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ট্রাকদুটি সহ দুজন চালককে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে সকালে আশুগঞ্জ পাওয়ার প্লান্টের একটি বেসরকারি ইউনিট ৯৫ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন এগ্রিকো পাওয়ার প্লান্ট থেকে দাবি করা হয় দুটি ট্রাকের মালামাল তাদের তবে এর পক্ষে কোন যৌক্তিক কাগজপত্র দেখাতে পারেনি তারা।

আশুগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম কামরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ট্রাক তিনটি সহ এর চালকরা থানায় আটক আছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়াও এই মালামালের বৈধ কাগজপত্র সংশ্লিষ্টদের কাছে চাওয়া হয়েছে। এখনো থানায় মালামালের পক্ষে বৈধ কোন কাগজ থানায় এসে পৌছায়নি। যদি বৈধ কাগজপত্র পাওয়া না যায় তাহলে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন লোকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করেন, ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন (নর্থ) ইউনিটের মালামাল এগুলি। রাতের আধারে বিভিন্ন সময়ে এই ইউনিট থেকে অনেক মালামাল পাচার হচ্ছে। আর এতে বিশাল কমিশন নিয়ে সহায়তা করছেন এই প্রকল্পের পরিচালক ক্ষিতিশ চন্দ্র বিশ্বাস। তার নির্দেশেই এই মালামালগুলি ওয়্যার হাউজ থেকে রাতের অন্ধকারে পাচার হয়।

এসব অভিযোগ অস্বিকার করে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন ইউনিটের প্রকল্প পরিচালক ক্ষিতিশ চন্দ্র বিশ্বাস জানান, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক নয়। তবে রাতের আধারে মালামাল পরিবহন ঠিক নয়। তবে এই মালামাল গুলি কোথা থেকে আনা হয়েছে তা আমার জানা নাই।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাজ্জাদুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটি ৪৫০ মেগাওয়াট (নর্থ) প্রজেক্টের বিষয়। এ ব্যাপারে আমার জানা নাই।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares