Main Menu

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ভাষা দিবসে যৌথ অনুষ্ঠান বাতিলের জন্য দায়ী মমতা ॥ ভারতীয় দৈনিক যুগশঙ্খ…

+100%-

আবুল হাসনাত মোঃ রাফি ॥ গত ২২-০২-২০১২ইং ভারতীয় দৈনিক যুগশঙ্খ লিখেছে- ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের বেনাপোল-পেট্রাপোল নো-ম্যান্স ল্যান্ডে দীর্ঘ দিন ধরে হয়ে আসা ভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠান এ বছর থেকে আর হবেনা।পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী ও গাইঘাটা এলাকার বিধায়ক ও মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বাঁধার অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ অনুষ্ঠানে প্রতিবছর দুই দেশের  শিল্পী ও মানুষের ব্যাপক অংশ গ্রহনে সেখানে মহা মিলনের সৃষ্টি হয়।নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয় ভাষা দিবস।দুই দেশের ঐতিহ্য,পরম্পরার বার্তাও দেওয়া-নেওয়া হয় এ অনুষ্ঠানএ।প্রতি বছর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভারত -বাংলাদেশ গঙ্গা পদ্মা ভাষা ও মৈত্রী সমিতি এ অনুষ্ঠানের আয়োজক এবং দুই দেশের স্থানীয় প্রশাসন তাতে সহযোগিতা করে থাকে।অনুষ্ঠানের যৌথ আয়োজক কমিটির সভাপতি ভারতের পূর্বতন সাংসদ অমিতাভ নন্দি এবং সাধারন সম্পাদক বাংলাদেশের এমপি শেখ আফিল উদ্দিন।আয়োজক কমিটির প্রধান উপদেষ্টা শ্যামল চক্রবর্তী সংবাদ মাধ্যম কে জানিয়েছেন,অনুষ্ঠান বাতিল করার প্রতিবাদ জানাতে মঙ্গলবার সকাল ১০টা নাগাদ তারা সেখানে যান।অবশ্য সেখানে সরকারের বাঁধা সত্ত্বেও একটি মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এদিকে অনুষ্ঠানের একদিন আগে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের এ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের লেখক-বুদ্ধিজীবীরা তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।বাংলাদেশের পত্রিকাগুলো ফলাও করে ছেপেছে এই খবরটি।দৈনিক সমকাল প্রথম পাতায় গুরুত্ব সহকারে ছেপেছে এই খবরটি।শিরোনাম ছিল এত েেপ গেলেন কেন দিদি মমতা? মূল সংবাদে তারা লিখেছে -ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দিয়ে মমতা বন্দ্যপাধয় সংকীর্ণ মনের পরিচয় দিয়েছেন।এক মাত্র তার একগুঁয়েমির কারনে অনুষ্ঠানটি বন্ধ হয়েছে।পার্শ্ববর্তী রাজ্যের নেত্রী হলেও বাংলাদেশের মানুষের কাছে তার যে জনপ্রিয়তা ছিল তা অনেকটাই কমে গেছে।দৈনিক সকালের খবর এ সংবাদটি লিড নিউজ করেছে।পত্রিকাটির হেড লাইন ছিল-মমতার বাধায় সীমান্তে ভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠান বাতিল।দৈনিক যায়যায় দিন শিরোনাম দিয়েছে-মমতার বাংলাদেশি বিদ্বেষ , গঙ্গার পানি নিয়ে দিল্লির কাছে নালিস। ভাষা দিবসের যৌথ অনুষ্ঠান বাতিল।দৈনিক ডেসটিনির শিরোনাম ছিল-মমতার একগুয়েমি,এবার বেনাপোলে একুশে মিলন মেলা বসছে না।দৈনিক ভোরের কাগজ শিরোনাম দিয়েছিল-ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কে দূরত্ব বাড়াচ্ছেন মমতা।বাংলাদেশ প্রতিদিন শিরোনাম দিয়েছিল- মমতার ঝগড়া।  বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার লিখেছে,মমতা স্ট্রাইক টু হার তিস্তা গনস।দ্য ইন্ডেপিন্ডেন্ট শিরোনাম দিয়েছে- মমতা স্টপ দ্য মাদার লেঙ্গুয়েজ ডে। এ ছাড়া বাংলাদেশের সব গুলো দৈনিক এই খবরটি গুরুত্ব সহকারে ছেপেছে। সংবাদপত্র গুলি লিখেছে, মমতা বন্দ্যপাধয় বাংলাদেশের প্রতি বন্ধুত্বের নিদর্শন রাখবেন।তিনি তা না করে উল্টো এমন অবস্থার সৃষ্টি করেছেন,যাতে আমাদের দুই দেশের সম্পর্কে একটা বিরূপ প্রভাব ফেলে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares