Main Menu

কসবার শতবর্ষের স্বাক্ষী, ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজ আর নেই

+100%-

কসবা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী খেওড়া শ্রীশ্রী মা আনন্দময়ী আশ্রমের সভাপতি, আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, বিশিষ্ট সমাজসেবক, মন্দিরের পূজারী এবং আনন্দময়ী মায়ের স্নেহধন্য ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজ (১২৬) সোমবার (৩ মার্চ) সকালে খেওড়া আনন্দময়ী আশ্রমে পরলোক গমন করেন। তাঁর মৃত্যুতে পুরু এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। তাঁকে একনজর দেখার জন্যে হাজার হাজার মানুষের ঢল পড়ে। ওইদিন বিকেলে আশ্রমের পাশে তাঁর মরদেহ সমাধিস্থ করা হয়।

উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রুহুল আমিন ভূইয়া বকুল ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জালাল সাইফুর রহমান তাঁর মরদেহে পূষ্পার্ঘ্য অর্পন করেন। এদিকে খেওড়া আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজের মৃত্যুতে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও পরিচালনা পর্ষদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় ।

এছাড়াও কসবা প্রেসক্লাব সভাপতি মো. সোলেমান খান, সাধারণ সম্পাদক নেপাল চন্দ্র সাহা, কসবা শ্রীশ্রী গোবিন্দ জিউর কেন্দ্রীয় মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি খোকন রায়, কুটি শ্রীশ্রী জগন্নাথ দেব মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মন্তোষ চন্দ্র সাহা, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রতন চন্দ্র সাহা ও খেওড়া আনন্দময়ী আশ্রম পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তুলশী চন্দ্র সাহা গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

অপরদিকে খেওড়া আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নারায়ন চন্দ্র সাহা মনি বলেন, ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজের মৃত্যুতে গ্রামের মানুষ আজ অভিভাবক শূন্য হয়ে পড়েছে। তিনি মায়ের পূজো আর মানুষের ভালোবাসার মাঝেই জীবন কাটিয়েছেন। তিনি খেওড়া গ্রামকে মায়ের মতো ভালোবাসতেন। তিনি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে শিক্ষার আলো বিস্তারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।


এছাড়াও কসবা প্রেসক্লাব সভাপতি মো. সোলেমান খান, সাধারণ সম্পাদক নেপাল চন্দ্র সাহা, কসবা শ্রীশ্রী গোবিন্দ জিউর কেন্দ্রীয় মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি খোকন রায়, কুটি শ্রীশ্রী জগন্নাথ দেব মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মন্তোষ চন্দ্র সাহা, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রতন চন্দ্র সাহা ও খেওড়া আনন্দময়ী আশ্রম পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তুলশী চন্দ্র সাহা গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।
অপরদিকে খেওড়া আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নারায়ন চন্দ্র সাহা মনি বলেন, ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজের মৃত্যুতে গ্রামের মানুষ আজ অভিভাবক শূন্য হয়ে পড়েছে। তিনি মায়ের পূজো আর মানুষের ভালোবাসার মাঝেই জীবন কাটিয়েছেন। তিনি খেওড়া গ্রামকে মায়ের মতো ভালোবাসতেন। তিনি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে শিক্ষার আলো বিস্তারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। – See more at: http://www.fairnews24.com/details.php?id=27804#sthash.YRHFLHZo.dpuf

এছাড়াও কসবা প্রেসক্লাব সভাপতি মো. সোলেমান খান, সাধারণ সম্পাদক নেপাল চন্দ্র সাহা, কসবা শ্রীশ্রী গোবিন্দ জিউর কেন্দ্রীয় মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি খোকন রায়, কুটি শ্রীশ্রী জগন্নাথ দেব মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি মন্তোষ চন্দ্র সাহা, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রতন চন্দ্র সাহা ও খেওড়া আনন্দময়ী আশ্রম পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তুলশী চন্দ্র সাহা গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।
অপরদিকে খেওড়া আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নারায়ন চন্দ্র সাহা মনি বলেন, ব্রহ্মচারী মানিক মহারাজের মৃত্যুতে গ্রামের মানুষ আজ অভিভাবক শূন্য হয়ে পড়েছে। তিনি মায়ের পূজো আর মানুষের ভালোবাসার মাঝেই জীবন কাটিয়েছেন। তিনি খেওড়া গ্রামকে মায়ের মতো ভালোবাসতেন। তিনি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে শিক্ষার আলো বিস্তারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। – See more at: http://www.fairnews24.com/details.php?id=27804#sthash.YRHFLHZo.dpuf





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares