Main Menu

আশুগঞ্জে প্রধান মন্ত্রী, আবারো ভোট দিয়ে জয়ী করার আহবান

+100%-

মনিরজ্জামান পলাশ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ সফর করেছেন। তিনি সকাল সোয়া ১০ টায় আশুগঞ্জ পৌঁছান এবং একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন ও পাঁচটি বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন । পরে তিনি তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সুধী সমাবেশে যোগ দেন।

মহাজোট সরকারের আমলে এটি প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয়বার আশুগঞ্জ সফর। বিদ্যুৎ উৎপাদনের মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে তিনি আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেড (এপিএসসিএল) কর্তৃক নির্মাণকৃত বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন এবং নির্মিতব্য পাঁচটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানির অভ্যন্তরে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পাঁচটি নতুন ইউনিট নির্মিত হবে।

 

সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘দেশে বিদ্যুৎ ঘাটতি মেটাতে বিদ্যুৎ আমদানির ব্যাপারে নেপাল, ভারত ও ভুটানের সঙ্গে আলোচনা চলছে।’’
এসময় স্থানীয় সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘এলাকায় টেস্ট রিলিফের (টিআর) গম দিয়ে হলেও বিদ্যুৎ বঞ্চিত এলাকায় বিদ্যুতের ব্যবস্থা করবেন।’’

এসময় তিনি আরো বলেন, ‘‘বর্তমানে যে নৌ-বন্দর রয়েছে, তা উন্নত করে শুধু ভারতের সঙ্গে নয় বরং এশিয়ার দেশগুলো ও মালয়েশিয়ার সঙ্গে নৌ-যোগাযোগ স্থাপন করা হবে।’’

 

আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, পর্যায়ক্রমে ২০১৬ সালের মধ্যে নির্মিতব্য ইউনিটগুলো উৎপাদনে আসবে। এতে জাতীয় গ্রীডে যোগ হবে অতিরিক্ত প্রায় এক হাজার ৩০০ মেগাওয়াট এবং এককভাবে জাতীয় গ্রীডে এ কেন্দ্র থেকে সরবরাহ করবে এক হাজার ৭০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। জানা গেছে, আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেডের নয়টি ইউনিটের উৎপাদন ক্ষমতা ৭৭৮ মেগাওয়াট হলেও ইউনিটগুলি পুরাতন ও মেয়াদোর্ত্তীণ হওয়ায় প্রতিদিন প্রায় সাড়ে ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়।

নির্মিতব্য ইউনিটগুলো হচ্ছে প্রতিটি ৪৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট প্রকল্প (নর্থ ও সাউথ), ২২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্ট প্রকল্প, ৫১ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন মিডল্যান্ড পাওয়ার প্লান্ট ও ভাড়াভিত্তিক ২১০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন মডিওলার পাওয়ার প্লান্ট। নতুন ইউনিটগুলি পর্যায়ক্রমে ২০১৪ সালের শেষ দিক থেকে ২০১৬ জুনের মধ্যে উৎপাদনে আসলে জাতীয় গ্রীডে যোগ হবে আরো এক হাজার ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ।

বর্তমান সরকারের আমলে গত ২০১০ সালের ১২ মে প্রধানমন্ত্রী আশুগঞ্জ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তরে প্রিসিশন এনার্জি লিমিটেড কর্তৃক নির্মিত ৫৫ মেগাওয়াট রেন্টাল পাওয়ার প্লান্টেরও উদ্বোধন করেন।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী নুরুল আলম বলেন, “নতুন ইউনিটগুলি নির্মাণে ব্যয় হবে প্রায়  ১১ হাজার কোটি টাকা এবং এগুলি ২০১৬ সালের জুন মাসের মধ্যে উৎপাদনে আসবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি সকাল সোয়া ১০টার দিকে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র চত্বরের ভেতর তৈরি হেলিপ্যাডে অবতরণ করে। দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে হেলিকপ্টারে করে ঢাকার উদ্দেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সফর সঙ্গী হিসেবে ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিকই ইলাহী, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ  প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ এনামুল হক, আইন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম ও বিদ্যুৎ সচিব মোনোয়ার ইসলাম।
সুধী সমাবেশে আরো ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য র আ ম ওবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী, আশুগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মৃধা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইদুল হক।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares