Main Menu

এবার আমু-তোফায়েল বিরোধ।। প্রেক্ষাপট সৈয়দ আশরাফ

+100%-

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফকে নিয়ে দলের মধ্যে দুইটি স্রোত তৈরি হয়েছে। এই দুই স্রোতের মধ্যে একটি গ্রুপ চাচ্ছে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সৈয়দ আশারাফ যেন চলে যায়। এই গ্রুপে আছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, রবিউল আলম মোকতাদির, আলাউদ্দিন নাসিম। এই গ্রুপটির পেছনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদের আশির্বাদ রয়েছে বলে আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।   

সূত্র জানায়, সম্প্রতি গণমাধ্যমে সৈয়দ আশারাফকে নিয়ে যে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ হয়েছে তার পেছনে এই গ্রুপের ইন্ধন রয়েছে। তারা চাইছে আশরাফকে নিয়ে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশ করলে হয়তো তিনি অভিমান করে দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ ছেড়ে দেবেন। কিন্তু তা হয়নি। পদত্যাগের গুজব শোনা গেলেও তিনি পদত্যাগ করেননি।

দলের আরেকটি গ্রুপ, যারা চাইছেন সৈয়দ আশরাফই সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকুন। তাদের মত, সৈয়দ আশরাফ দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ। তিনি দলের সভানেত্রীর শতভাগ বিশ্বস্ত। তাকে নিয়ে দলের মধ্যে নেতিবাচক আলোচনাকে তারা দলের ‘ক্ষতি’ বলেই মনে করেন। এই গ্রুপটির সঙ্গে রয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু।

এই গ্রুপটির নেতারা মনে করেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পিতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম। তিনি ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অত্যন্ত ঘনিষ্ট সহচর। সে কারণে দলের প্রতি ও দলীয় সভানেত্রীর প্রতি শতভাগ আস্থা রেখেই সৈয়দ আশরাফ কাজ করছেন। দলের সার্বিক কর্মকাণ্ড তাকে নিয়েই পরিচালিত হোক এমনটাই মনে করেন তারা।

এ বিষয়ে দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন ঢাকা টাইমসকে বলেন, দলের মধ্যে কোনও বিভেদ নেই। দল পরিচালনায় অনেকের সঙ্গে ভিন্নমত তৈরি হতে পারে। কিন্তু সেটা বিভেদের কোনও বিষয় নয়।

দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন ঢাকা টাইমসকে বলেন, দলে কোনও ধরনের বিভেদ নেই। কোনও দলাদলি নেই। দেশের সবচেয়ে বৃহত্তম এই সংগঠনের নেতৃত্ব নিয়ে প্রতিযোগিতা থাকতে পারে মাত্র।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares