Main Menu

সারা দেশেই বহুতলবিশিষ্ট অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট করব: গণপূর্তমন্ত্রী

+100%-

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেছেন, ‘সারা দেশেই বহুতলবিশিষ্ট অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট করব। অ্যাপার্টমেন্টের একটি অংশ প্রবাসীদের জন্য সংরক্ষিত রেখে বাকিটা সাধারণের কাছে বিক্রি করার ব্যবস্থা করব।’

আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পক্ষ থেকে গণপূর্তমন্ত্রীকে গণসংবর্ধনা দেওয়া হয়। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এ কথা বলেন। তিনি ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘মন্ত্রিত্ব কোনো বড় বিষয় নয়। দেশের জন্য কাজ করা হলো বড় কথা। এখন যে অপরিকল্পিত আবাসন চলছে, তা বন্ধ করে দিয়ে পরিকল্পিত আবাসনে আমরা যেতে পারি। সেটা নগরেই হোক অথবা গ্রামে হোক। সেখানে ভালোভাবে কাজ করার সুযোগ এই মন্ত্রণালয়ে আছে।’ মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা সারা দেশে অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট করব। পার্শ্ববর্তী কোনো এলাকায় বা শহরে যদি কোথাও জায়গা পাই, এখানে আমরা বহুতলবিশিষ্ট অ্যাপার্টমেন্ট করব। সেই অ্যাপার্টমেন্টের একটি অংশ প্রবাসীদের জন্য সংরক্ষিত রেখে বাকিটা সাধারণের কাছে বিক্রি করার ব্যবস্থা করব। এটি পরিকল্পিত, ইকো ও ন্যাচার ফ্রেন্ডলি হবে।’

নিজের মন্ত্রণালয় প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘পড়ন্ত বয়সে এসে আমার ওপর যে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, এটি গুরুদায়িত্ব, কঠিন দায়িত্ব। বাংলাদেশের খুবই একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হয়েছে। যে মন্ত্রণালয়ে কাজ করে সুনামের সঙ্গে বিদায় নেওয়া খুবই কঠিন একটি কাজ। আমি চ্যালেঞ্জ হিসেবে এটাকে নিয়েছি যে দেখা যাক এখানে কিছু করতে পারি কি না। এখানে অনেক কিছু আমার করার আছে। আমার চেষ্টা থাকবে গৃহায়ণ মন্ত্রণালয়কে একটি আদর্শ মন্ত্রণালয়ের পরিণত করার। আমরা যে যার অবস্থানে থেকে যদি ন্যায়সংগত কাজ করি, তাহলেই দেশ থেকে দুর্নীতি বন্ধ হয়ে যাবে।’

মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিতাস নদীর পূর্বপারে একটি পরিকল্পিত উপশহর গড়ে তুলব। যার কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। শহরের পূর্ব প্রান্তে তিতাস নদীর পাড় দিয়ে একটি রাস্তা নির্মাণ করা হবে। যার নকশার কাজ শেষ হয়েছে। প্রকৌশলীরা এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক থেকে দেড় হাজার আসনবিশিষ্ট একটি মাল্টিপারপাস কমিউনিটি সেন্টার করব। বিজয়নগরেও করব। শিশুদের বিনোদনের জন্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসংবলিত একটি শিশুপার্ক গড়ে তোলা হবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার সীমানা বর্ধিত করার কাজ চলছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে একটি নান্দনিক ও পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে গড়ে তোলা হবে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আইনশৃঙ্খলার বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে গণপূর্তমন্ত্রী মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছিনতাই-চাঁদাবাজি বন্ধ ছিল। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি ছিনতাই হয়েছে। অবশ্যই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছিনতাই-চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে। এসব অপকর্মের সঙ্গে যদি আওয়ামী লীগ বা অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের কেউ জড়িত থাকে, অবশ্যই তাকে গ্রেপ্তার করতে হবে। তিনি বলেন, সামনে পবিত্র রমজান। এই মাসে যাতে কেউ কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি না করে, সেদিকে পুলিশকে নজরদারি বাড়াতে হবে।

ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়া ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য সৈয়দ শামসুদ্দিনের সভাপতিত্বে গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মাউশির সাবেক মহাপরিচালক, ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রেজারার ও গণপূর্তমন্ত্রীর সহধর্মিণী অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন, ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য মাহমুদুল হক ও কাজী শফিকুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য দেন ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও পিএসসির সদস্য অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন।