Main Menu

আশুগঞ্জে কলেজ ছাত্র খুনের অভিযোগ ॥ ৩ যুবক গ্রেপ্তার

+100%-


প্রতিনিধি ঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে নানার বাড়িতে বেড়াতে এসে সজীব খান-(১৯) নামে এক কলেজ ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তবে ওই ছাত্রের পরিবারের দাবি বন্ধুরা তাকে খুন করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শত শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার খড়িয়ালা গ্রামে। রবিবার সকালে পুলিশ মৃতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলাসদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। মৃত সজীব খান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তি গ্রামের মাজু খানের ছেলে। এ ঘটনায় আশুগঞ্জ থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ ৩ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে খড়িয়ালা গ্রামের দিপু-(২০), মামুন-(২০) ও নাজিম (১৯)।
মৃতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তি গ্রামের মাজু খান  ঢাকা শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দরে এক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন। পরিবার নিয়ে বসবাস করেন ঢাকার খিলঁগাও। তার ২ পুত্র সজীব খান গত বছর সিভিল এভিয়েশন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ব্যবসায় শিক্ষা শাখায় গোল্ডেন জিপিএ- ফাইভ পেয়ে এস.এস.সি পাশ করে চলতি শিক্ষাবর্ষে রাজউক উত্তরা মডেল স্কুল এন্ড কলেজে ভর্তি হয়।
রমজান মাসে কলেজ ছুটি থাকায় গত ২০ জুলাই সজিব আশুগঞ্জ উপজেলার খড়িয়ালা গ্রামে তার নানা বাড়িতে বেড়াতে আসে। গত শনিবার সন্ধ্যায় সজীব এবং তার ৩ বন্ধু মামুন,নাজিম ও দিপু মিলে নানা বাড়ির পাশের আয়েত আলী মিয়ার বাড়ীর ছাদে আড্ডা দিতে যায়। অভিযোগ রয়েছে আড্ডা চলা অবস্থায় প্রেমঘটিত একটি বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে পর্যায়ে পর্যায়ে সজিবকে ছুরিকাঘাত করে ছাদ থেকে ফেলে দেয়া হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে সজীবের বন্ধুরা সজিব বিদ্যুৎস্পর্শে মারা গেছে বলে  এলাকায় প্রচার করে।
খবর পেয়ে সজিবের বাবা মাজু খান ও তার পরিবারের লোকজন আশুগঞ্জে  এসে মৃত সজিবের মুখে, থুতনির নিচে ও বাম পায়ে একাধিক আঘাতের চিহ্ন ও রক্তাক্ত দেখে তাদের সন্দেহ হয়। পরে তারা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্বার করে থানায় নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় মৃত সজিবের পিতা মাজু খান  সজিবের বন্ধু দিপু, মামুন ও নাজিমসহ ৪জনের বিরুদ্ধে গতকাল রবিবার সকালে আশুগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ এজহারভুক্ত ৩ আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে।
মৃত সজিবের পিতা মাজু খান বলেন, আমার ছেলেকে ওরা হত্যা করেছে। আমি খুনীতের শাস্তি চাই।
এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ গোলাম ফারুক বলেন, লাশের গায়ে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় ৪জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছি। তিনি বলেন, ময়নাতদন্তের  রিপোর্ট না দেখে এর প্রকৃত ঘটনা বলা যাবেনা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares