Main Menu

পল্লী বিদ্যুতের অবহেলায় পুড়লো বিধবার ঘর, ৩০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি

+100%-

মিঠু সূত্রধর পলাশ : নবীনগরে পল্লী বিদ্যুতের অবহেলায় বসতঘরে আগুন লাগার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) রাত ৮ টায় উপজেলার বিদ্যাকুট গ্রামের দক্ষিণ পশ্চিম পাড়া মৃত আবু তাহের মিয়ার বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। এতে বসতঘর,আসবাবপত্র,নগদ টাকা স্বর্ণলংকারসহ প্রায় ৩০ লাখ টাকার মালামাল পুঁড়ে ছাঁই হয়েছে।

জানা যায়, কয়েক দিন ধরে ঘনঘন বিদ্যুতের লোডশেডিং হচ্ছে, ফলে বাড়ির পাশের একটি বিদ্যুতের খুঁটিতে আগুন জ্বলে উঠতো। বিষয়টি লাইনম্যানকে অবগত করলেও তারা আমলে নেয়নি। শুক্রবার রাতে বিদ্যুৎ আসলে বিদ্যুতের খুঁটিতে প্রথমে আগুন জ্বলে, তারপর বৈদ্যুতিক মিটারে আগুন লাগলে পরক্ষণেই বসতঘরে আগুন লাগে। স্থানীয়রা চেষ্টা করেও আগুন নিভাতে পারেনি। পরে খবর পেয়ে নবীনগরের ফায়ার সার্ভিসের ১ টি ইউনিট, ও স্থানীয়রা প্রায় ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

মৃত আবু তাহের মিয়ার স্ত্রী মারুফা বেগম বলেন, আমার স্বামী নেই। প্রায় এক বছর পূর্বে জমি বিক্রি করে ২২ লাখ টাকা দিয়ে ঘর নির্মাণ করেছিলাম, গত রাতে আগুন লেগে আমার বসতঘরের টিভি, ফ্রিজ ও ৪ ড্রাম চাল ,নগদ টাকা ও আসবাবপত্র ও সর্ণলংকার সহ প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার সম্পুর্ণ মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আমি আমার ঘরে নামাজ পড়তে ছিলাম।হঠাৎ একটি শব্দ শুনতে পাই, বের হয়ে দেখি আমার ঘরে আগুণ লেগেছে।আমি চিৎকার করতে দেখে গ্রামের লোকজন আগুন নিভানোর জন্য আসে। আগুন নিভানো হলেও আমার ঘরে আর কিছুই নেই। সবই আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেল।আমার শরীরে থাকা কাপড় ছাড়া কিছুই রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় বাসীন্দা জুলেখা বেগম বলেন, অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে পল্লী বিদ্যুতের লোকদের অবহেলার কারণে।ঘনঘন লোডশেডিং এর কারণে প্রতিনিয়ত বিদ্যুতের খুঁটিতে আগুন জ্বলতো, আমরা অনেকবার বলেছি ঠিক করে দেওয়ার জন্য তারা ঠিক করে দেয়নি। গতকাল প্রথমে বিদ্যুতের খুঁটিতে আগুন লাগে তারপর বৈদ্যুতিক মিটার থেকে আগুন জ্বলে যায়।এতে পরক্ষণেই বসতঘরের আগুন লেগে ঘরের সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

বিদ্যাকুট ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ড সদস্য মো. কাশেম মেম্বার জানান, আমার ওয়ার্ডের মারুফা বেগমের ঘরে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। পরিবার টি খুব অসহায়, কয়েকমাস পূর্বে ঘরটি নির্মাণ করেছিল। পল্লী বিদ্যুতের লোকদের অবহেলার কারণে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রায় ত্রিশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের লোক আসছিল, তারা আসার পূর্বেই সব পুড়ে ছাই হয়ে যায়। নবীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ গ্রামের বৃত্তবান ব্যাক্তিরা পরিবার টিকে সহযোগিতা করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।