Main Menu

কসবায় আমন উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষি প্রণোদনা পেলেন ১১ শ কৃষক

+100%-

কসবা প্রতিনিধি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরে খরিপ-২ মৌসুমে আমন ধান উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিনামুল্যে সরকারের কৃষি প্রণোদনা পেলেন উপজেলার প্রায় ১১ শ জন প্রান্তিক কৃষক। মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ও উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ১০টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার এসকল স্থানীয় প্রান্তিক কৃষক-কৃষাণীদের মাঝে প্রণোদনার সার ও বীজ বিতরন করা হয়। প্রতি কৃষকের মাঝে ১০ কেজি এমওপি, ১০ কেজি ডিএপি সার ও ৫ কেজি আমন ধানের বীজ বিতরন করা হয়।

উপজেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শাহরিয়ার মুক্তার’র সভাপতিত্বে ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজেরা বেগমের সঞ্চালনায় কৃষি উপকরণ বিতরন অনুষ্ঠান প্রধান অতিথি ছিলেন নবনির্বাচিত উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ছাইদুর রহমান স্বপন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, কসবা পৌর মেয়র মোঃ গোলাম হাক্কানী, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা রুহুল আমিন সরকার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদা সুলতানা সুপ্রিয়া, কসবা প্রেসক্লাব সহ-সভাপতি নেপাল চন্দ্র সাহা ও সাধারন সম্পাদক আবুল খায়ের স্বপন প্রমুখ। এসময় উপকারভোগী কৃষক-কৃষানী ও উপজেলা কৃষি উপসহকারী কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ছাইদুর রহমান স্বপন বলেন, বাংলাদেশ একটি কৃষি নির্ভর দেশ। বর্তমান সরকার কৃষিবান্ধব সরকার। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে নিরলস কাজ করছেন। আপনার যে সরকারী প্রণোদনা পেয়েছেন তা যথারীতি প্রয়োগ করে কৃষির উন্নয়নে অগ্রনী ভূমিকা রাখবেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা যেন আপনাদের জন্য আরও কাজ করতে পারেন আপনার সেদিকে খেয়াল রাখবেন।

সভাপতির বক্তৃতায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শাহরিয়ার মুক্তার বলেন, আমাদের অর্থনীতি হচ্ছে কৃষি নির্ভর অর্থনীতি। আপনার যারা মাঠে কাজ করেন, আপনাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারনেই আমাদের এই কৃষি নির্ভর অর্থনীতি বেঁচে আছে। উপজেলা প্রশাসন এবং উপজেলা পরিষদ সব সময়ই কৃষকদের পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করার চেষ্টা করে থাকেন। তারই অংশ হিসেবে আজকের এই সরকারী প্রণোদনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য দেশকে খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্ণ করা এবং ইতিমধ্যেই কয়েকটি সেক্টরে আমরা স্বয়ংসম্পন্ন হয়েছি। আমরা আশা করবো আজকে আপনাদের যে সরকারী প্রণোদনা দেয়া হয়েছে তার যেন সৎ ব্যবহার হয়। তাহলে কৃষি এবং কৃষকের আরও উন্নয়ন হবে ।