Main Menu

মালয়েশিয়ার জন্য আরো ১১ হাজার ৭০৪ জন নির্বাচিত

+100%-
ডেস্ক ২৪ :মালয়েশিয়ায় সরকারীভাবে গভর্মেন্ট টু গভর্মেন্ট (জি টু জি) জনশক্তি রপ্তানীর জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ের লটারীর মাধ্যমে আরো ১১ হাজার ৭০৪ জন বাংলাদেশী নাগরিককে নির্বাচিত করা হয়েছে।

বিভাগওয়ারী লটারির ফল হচ্ছে, ঢাকা বিভাগে- ৩৬৩৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে- ২২৪৫ জন, খুলনা বিভাগে-১২৭৮ জন, রাজশাহীতে- ১৫৫১ জন, বরিশালে-৭৫৮ জন, সিলেটে- ৮৭৩ জন ও রংপুরে- ১৩৬১ জন।

আজ রাজধানীর ইস্কাটনস্থ প্রবাসীকল্যাণ ভবনে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান বিষয়ক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের উপস্থিতিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই ইলেকট্রনিক লটারি অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, এদিন দ্বিতীয় দফার লটারিতে ২৪ হাজার ২৮০ জনের মধ্য থেকে ১১ হাজার ৭০৪ জন নির্বাচিত হয়। ইতোপূর্বে প্রথম দফায় লটারির মাধ্যমে ১১ হাজার ৭৫৮ জনকে নির্বাচিত করা হয়েছিল। প্রথম পর্যায়ে লটারি বিজেতাদের মালয়েশিয়া যাবার বিষয়টি বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মালয়েশিয়া সরকার তাদের প্লান্টেশন সেক্টরে কাজ করার জন্য প্রায় ৩০ হাজার বাংলাদেশীকে নিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করায় সরাসরি সরকারিভাবে জি টু জি পদ্ধতিতে মাত্র ৪০ হাজার টাকারও কম খরচে এই অভিবাসন প্রক্রিয়া চলছে। সারাদেশের ইউনিয়ন পর্যায় থেকে অনলাইনে ফর্মপূরণ করে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় লটারির মাধ্যমে গমনে”ছু নির্বাচন করে চুড়ান্ত বাছাইয়ের পর মালয়েশিয়ায় এই জনশক্তি রপ্তানী করা হ”েছ।

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ জানান, ‘বর্তমান সরকারের সাড়ে ৪ বছরে ২১ লাখ ৩০ হাজার ৪৫৩ জনকে বিশ্বের প্রায় ১৫৭টি দেশে রপ্তানী করেছে বাংলাদেশ। এই সময়ে দেশে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের পরিমান ৫৪ দশমিক এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার।’

বাংলাদেশ সরকারের বিশেষ অনুরোধে মালয়েশিয় সরকার সেদেশে প্রায় ২ লাখ ৬৮ হাজার অবৈধভাবে অবস্থানরত বাংলাদেশীকে বৈধতা প্রদান করেছে। এই বৈধতা প্রদান প্রক্রিয়া কয়েকমাস আগে শুরু হয় বলেও তিনি জানান।

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ সৌদি আরবে অবস্থানরত কাগজপত্রবিহীন অবৈধ বাংলাদেশীদের সেদেশের সরকারের বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে বৈধ কাগজপত্র তৈরি করে নিতে অনুরোধ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত অনুরোধে সৌদি সরকার কাগজপত্র বৈধ করার নির্দিষ্ট সময় ৩ মাস বেঁধে দেয়া সত্বেও পরবর্তিতে আরো অতিরিক্ত ৪ মাস বৃদ্ধি করেছে। এই সময় আগামী ৩ নভেম্বর ২০১৩ শেষ হবে।

বাংলাদেশী পাসপোর্টধারী রোহিঙ্গাদের সৌদি আরবে অবস্থান বিষয়ক এক প্রশ্নের উত্তরে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশী পাসপোর্টধারী অবাঙ্গালীদের সনাক্ত করতে সৌদি সরকারের কাছে প্রত্যেক নাগরিকের পরিচয়পত্র সরবরাহ করবে মন্ত্রণালয়।

সংবাদ সম্মেলনে প্রবাসী কল্যাণ সচিব ড.জাফর আহমেদ খানসহ মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares