Main Menu

ফরাক্কা-তদন্ত কমিটি কেন্দ্রের

+100%-

ফরাক্কাকাণ্ড নিয়ে প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রী বৈঠকের পরই নড়েচড়ে বসল কেন্দ্র. দু’টি স্লুইস গেট অকেজো হয়ে যাওয়ার কারণ খতিয়ে দেখতে গঠিত হল তদন্ত কমিটি. ১৫ দিনের মধ্যে কমিটিকে রিপোর্ট দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে.
ফরাক্কা বাঁধের দু’টি ভাঙা স্লুইস গেট নিয়ে বুধবারই প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়. তাঁর অভিযোগ ছিল, ফরাক্কা ব্যারাজে গত বছর দু’টি স্লুইস গেট অকেজো হয়ে যাওয়ায় নির্ধারিত ৩৩ হাজার কিউসেক জলের পরিবর্তে প্রায় ৮২ হাজার কিউসেক জল চলে যাচ্ছে বাংলাদেশে. বৈঠক থেকে বেরিয়ে মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেন, পরিকল্পিতভাবেই এই কাণ্ড ঘটানো হয়েছে. ঘটনার তদন্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠনের অনুরোধও জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়. এর পর বৈঠকের ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই, স্লুইস গেট ভেঙে পড়ার ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী.

জলসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী পবনকুমার বনশল জানিয়েছেন, ফরাক্কা ব্যারেজের ১৩ ও ১৬ নম্বর স্লুইস গেটের ভেঙে পড়ার ঘটনার তদন্ত করবেন কেন্দ্রীয় জল কমিশনের চেয়ারম্যান আর সি ঝা. আগামী দিনে কী করণীয় তাও রিপোর্টে জানাবেন তিনি. ১৫ দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দেবেন কেন্দ্রীয় জল কমিশনের চেয়ারম্যান. যতদিন না গেট দুটির মেরামতি সম্পূর্ণ হচ্ছে, ততদিন জল কমিশনের একজন সদস্য ফরাক্কা ব্যারেজে থাকবেন. স্লুইস গেটদুটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে কি না তাও খতিয়ে দেখবে এক সদস্যের তদন্ত কমিটি. গেট দু’টি মেরামতি করতে দেরি হল কেন তাও খতিয়ে দেখা হবে.  ফরাক্কা ব্যারােজ মোট ১০৮টি স্লুইস গেট রয়েছে. ১৩ ও ১৬ নম্বর গেটটি ১৯৭৫ সালে তৈরি.






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares