Main Menu

তিনটি ছোট যোগব্যায়াম দূর করে দেবে মানসিক চাপ

+100%-

টেনশন থেকে যত দূরে থাকতে চান না কেন, এর থেকে মুক্তি পাওয়া অসম্ভব। সাধারণ দৃষ্টিতে একে মারাত্নক কিছু মনে না হলেও, যে কোন বড় রোগের শুরু হয়ে থাকে অতিরিক্ত মানসিক চাপের কারণে। অতিরিক্ত মানসিক চাপের কারণে মস্তিষ্কের স্বাভাবিক কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়, যা স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি করে। অনেকেই মানসিক চাপ হ্রাস করার জন্য ওষুধ খেয়ে থাকেন। যা সাময়িকভাবে মানসিক চাপ কমলেও দেখা দেয় অন্যান্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া। ওষুধ না খেয়ে মানসিক চাপ দূর করুন সহজ কয়েকটি নিঃশ্বাসের ব্যায়াম করে। নিঃশ্বাসের এই ব্যায়ামগুলো শুধু মনকে শান্ত করে তা নয়, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ, হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনা কমায়। খুব সহজে ঘরে বসে করে নিতে পারেন এই তিনটি নিঃশ্বাসের ব্যায়াম।

১। সমান ব্রিদিং (Sama Vritti or Equal Breathing)

নাক দিয়ে চার পর্যন্ত গণনা করতে করতে শ্বাস নিন, আবার চার পর্যন্ত গণনা করতে করতে শ্বাস ছাড়ুন। এটি আপনার স্ট্রেস লেভেল কমিয়ে দেবে। যোগব্যায়ামে প্রতি শ্বাসে ছয় থেকে আট পর্যন্ত গণনা করা হয়। এটি আপানার নার্ভকে শান্ত করে, স্ট্রেস কমিয়ে দেয় এবং কাজে মনযোগী করে তুলে। শ্বাস প্রশ্বাসের দ্বারা শরীরে ভারসাম্য রক্ষা করা হয়।

যে কোন সময় আপনি এটি করতে পারেন। তবে সবচেয়ে ভাল হয় রাতে  ঘুমাতে যাওয়ার আগে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে এটি করলে।  পিসাকো  বলেন “ আপনার ঘুমের সমস্যা থাকলে এই ব্যায়ামটি তা দূর করে দেবে অথবা যা আপনাকে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটিয়ে থাকে তা দূর করে দেবে”।  এই ব্যায়ামটি যেকোন বয়সী মানুষে করতে পারে। যোগব্যায়ামের শুরুতে এই এটি করা হয়।

২। অ্যাবডোমিনাল ব্রিদিং টেকনিক (Abdominal Breathing Technique)

একটি হাত পেটের উপরে আরেকটি হাত বুকের উপর রেখে নাক দিয়ে শ্বাস নিন। এটি ফুসফুসে বাতাস প্রসারিত করে থাকে। প্রতি মিনিটে আস্তে আস্তে এইভাবে ছয় থেকে দশ বার শ্বাস গ্রহণ করুন। এভাবে প্রতিদিন ১০ মিনিট এই ব্যায়াম করুন। McConnell মনে করেন এটি ছয় থেকে আট সপ্তাহ করুন, দীর্ঘমেয়াদি উপকার পাবেন এর মাধ্যমে।

৩। ব্রিদিং কাউন্টিং (Breath Counting)

সহজ এবং ছোট এই ব্যায়ামটি আপনার স্ট্রেস দ্রুত কমিয়ে দেবে।  কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজ শুরুর সময় এটি আপনি করতে পারেন। যেন অনুশীলনের সময় এই যোগ ব্যায়ামটি বেশি করা হয়। সোজা হয়ে বসুন। চোখ বন্ধ করে শ্বাস গ্রহণ করুন। তারপর শ্বাস গ্রহণের সময় এক গণনা করুন, এরপর শ্বাস বের করার সময় দুই গণনা করুন। তারপর আবার শ্বাস গ্রহণের সময় এক বলে শুরু করুন। আস্তে আস্তে জোর না করে শ্বাস প্রশ্বাস নিন। এভাবে পাঁচ পর্যন্ত করুন।  এটি ১০ মিনিট করুন।

সূত্র: টাইম ডট কম






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares