Main Menu

বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে বোন-ভগ্নিপতিকে অপহরণের চেষ্টা, মারধর!

+100%-

শামীম উন বাছির :  ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কাউতলী এলাকার বাসিন্দা আক্তারুজ্জামান জামাল ও নূর মোহাম্মদ পানু নামের দুই ভাই তাদের সত্তরোর্ধ বোন ও ভগ্নিপতিকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে অপহরণের চেষ্টা ও মারধর করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার বোন নুরুন্নাহার বেগম বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন। তবে পুলিশ রহস্যজনক কারণে মামলার আসামিদের গ্রেপ্তার না করে নীরব ভূমিকা পালন করছেন।  
জানা যায়, অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সায়েদুর রহমানের স্ত্রী নুরুন্নাহার বেগম তার স্বামীকে নিয়ে পৈতৃক বাড়িতে গত ২৫ বছর ধরে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। এ অবস্থায় পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার উদ্দেশ্যে এই বাড়ি থেকে তাদেরকে উচ্ছেদ করার জন্য দুই ভাই জামাল ও পানু উঠে পড়ে লাগে। শুরু করে তাদের উপর অত্যাচার-নির্যাতন। বাড়ি ছেড়ে দিতে তাদেরকে স্থানীয় ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের দিয়ে হুমকি-ধামকি দেয়া হয়।
মামলার এজাহারে বলা হয়, গত ৩ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে জামাল ও পানু দেশীয় অস্ত্র ও স্থানীয় কতিপয় সন্ত্রাসীকে নিয়ে তাদের বাসায় ঢুকে ৮০ বছর বয়স্ক ভগ্নিপতি সায়েদুর রহমানকে লোহার রড দিয়ে পেটাতে থাকে। এরপর অস্ত্রের মুখে ঘর থেকে বের করে বাড়ির বাইরে রাখা পাজেরোতে তুলে তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হয়। গাড়িটি আশুগঞ্জে পৌঁছার পর চিৎকারের শব্দে লোকজন জড়ো হলে তাদেরকে গাড়ি থেকে ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর তারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফিরে এ ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আক্তারুজ্জামান জামাল ও নুর মোহাম্মদ পানুর বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।
মামলার বাদি নির্যাতনের শিকার নুরুন্নাহার বেগম জানান, নূর মোহাম্মদ ওরফে পানু ২০০৭ সালের অক্টোবর মাসে আমেরিকায় থাকাকালে মর্টগেজ ব্যাংকের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে কর্মকার্তা/কর্মচারি লোন অফিসার নিয়োগের মাধ্যম প্রতারাণার কারনে আমেরিকায় গ্রেফতার হয়।এবং আমেরিকার ঠিকানা নামে একটি বাংলা সাপ্তাহিক পত্রিকায় এই খবর গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশও হয়।
তবে বাদির অভিযোগ, এ পর্যন্ত মামলায় অভিযুক্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুর রব-এর বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, জায়গা সম্পত্তি নিয়ে তারা ভাই-বোনের মধ্যে দ্বন্ধ চলছে।যেহেতু মামলা হয়েছে তাই আমরা আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি।