Main Menu

সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বড় দুটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে সমঝোতা প্রয়োজন

+100%-

প্রতিনিধি : বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাস্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা বলেন সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বড় দুটি রাজনৈতিক দলের মধ্যে সমঝোতা খুবই প্রয়োজন। তিনি বলেন, প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের প্রতি আমার পরামর্শ গঠনমূলক সংলাপের মাধ্যমে তাদেরকেই অবাধ সুষ্ঠু নিরপে নির্বাচনের পথ খুঁজে বের করতে হবে। মঙ্গলবার বেলা তিনটায় আখাউড়া স্থল বন্দর পরিদর্শন শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট বারাব ওবাবা সময় সময়ই ইন্দো-প্যাসিফিক বাণ্যিজ্যিক রাস্তার কথা বলে থাকেন। ওবামা মনে  করেন উনিবিংশ শতাব্দীতে এই অঞ্চলটি মধ্য এশিয়া, দক্ষিণ এশিয়া ও সাউথ ইস্ট এশিয়ার  বাণিজ্যের একটি বড় জায়গা হবে। এই বাণিজ্যিক অঞ্চলের মাঝখানে রয়েছে বাংলাদেশ। ঈশ্বর আর্শিবাদ করে বাংলাদেশকে বাণিজ্যিক অঞ্চলের মাঝখানে থাকার সুযোগ দিয়েছে।
এসময় মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাথে ছিলেন তার স্ত্রী গ্রেস মজিনা, এমেরিকান দূতাবাসের রাজনৈতিক কর্মকর্তা এন্ড্র্রি কটন, লুবাইন চৌধুরী, প্রেস বিভাদের কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ মুহসেন, ব্রা‏‏হ্মণবাড়িয়া জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আজাদ সাল্লাল প্রমুখ। বেলা আড়াইটায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত আখাউড়া স্থল বন্দরে এসে পৌঁছে বন্দর ও শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে সাাত করেন। পরে নো ম্যান্স ল্যান্ডে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে।
মজিনা বলেন, একসময় এখানে প্রচুর পরিমাণে বাণিজ্য হবে। তাতে বাংলাদেশ আরও বেশি সমৃদ্ধ হবে। আমরা আসার সময় রাস্তায় একটি গ্রামে গেলাম। যেটি কিছুদিন আগে টর্নোডোতে লন্ডভন্ড হয়েগিয়েছিল। দেখলাম কিভাবে মানুষ আবার ঘরবাড়ি পুন:নির্মাণ করছে। আমি নির্বাচিত মহিলা জন প্রতিনিধিদের সাথে কথা বলেছি। এই নারীরা নতুন বাংলাদেশ গড়ে তোলার ব্যাপারে প্রত্যয়ী। তারা আমাকে বলেছে, তারা কিভাবে বাল্য বিবাহ রোধ করছে, কিভাবে শিশু শ্রম বন্ধ করার জন্য কাজ করছে। মহিলা পাচার রোধে কাজ করছে।
আমি এখানে আসার আগে আওয়ামীলী ও বিএনপির নেতৃবৃন্দরে সাথে সাাৎ করেছি। আমরা অনেক কিছু নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা সংলাপের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা করেছি। সহিংসতা বন্ধ করার প্রয়োজনীয়তা নিয়েও আমরা কথা বলেছি।
তার আগে আমরা আশগঞ্জ সারখানা পরিদর্শন করেছি। আমি জানতে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া এলাকাটি বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি বাংলাদেশের একটি সম্ভাবনাময় এলাকা।
তিনি বলেন আমিই প্রথম এমেরিকান এম্বাসেডার যে এখানে এসেছি। আমি জানতে পেরিছে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়া গ্যাস শক্তি (পাওয়ার), সার ও ধান উৎপাদনে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন বাংলাদেশের উন্নয়নে আমরা উৎপোতভাবে জড়িত।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares