Main Menu

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক মোগড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোহাম্মদ শাহজালাল

+100%-

মোহাম্মদ শাহজালাল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া উপজেলাধীন মোগড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি একই উপজেলার মোগড়া গ্রামের বাসিন্দা এবং মোগড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল মালেক মাস্টার এর সুযোগ্য পুত্র। গত ০৬/০৮/২০১৭ তারিখে মাননীয় জেলা প্রশাসক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা ২০১৭-এর জেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক বাছাই প্রতিযোগিতা শেষে ফলাফল ঘোষনা করা হয়।

এর আগে গত ২৫/০৭/২০১৭ তারিখে অনুষ্ঠিত উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক বাছাই প্রতিযোগিতায় তিনি আখাউড়া উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছিলেন। জনাব শাহজালাল গত ০৩/০৬/২০০৩ তারিখে প্রথম চাকুরিতে যোগদান করেন এবং ২০০৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পিটিআই থেকে সি-ইন-এড প্রশিক্ষন গ্রহণ করেন। তিনি স্নাতক পাশ করে চাকুরীতে প্রবেশ করলেও চাকুরীরত অবস্থায় মাস্টার্স পাশ করেন এবং বি,এড প্রশিকক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি তার উপজেলায় ইংরেজী এবং চারু ও কারু কলা বিষয়ের বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষক, ফলে তিনি উপজেলার সকল শিক্ষককে ইংরেজী এবং চারু ও কারু কলা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। তাছাড়া তিনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনস্থ বৃটিশ সরকার ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথভাবে পরিচালিত ইংরেজি ভাষাভিত্তিক প্রকল্প ইংলিশ-ইন-এ্যাকশন-এর টিচার ফ্যাসিলিটেটর বা প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করছেন। তিনি আখাউড়া উপজেলায় একজন দক্ষ প্রশিক্ষক হিসেবে সকলের নিকট সুপরিচিত।

জনাব শাহজালাল আইসিটি ইন এডুকেশন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত এবং এ বিষয়ে উপজেলায় বেশ দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। তিনি প্রাথমিক স্তরের বিভিন্ন বিষয়ের উপর ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরী করে শ্রেণিকক্ষে ব্যবহারের পাশাপাশি অন্যান্য শিক্ষকদেরও সরবরাহ করে থাকেন। শিক্ষকদের সরকারী ওয়েব পোর্টাল শিক্ষক বাতায়নেও তার অনেকগুলো ডিজিটাল কন্টেন্ট আপলোড করা আছে। তিনি বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, আখাউড়া উপজেলা শাখার সিনিয়র যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক (২০১০-২০১৭) হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। এছাড়াও তিনি তার এলাকায় বিভন্ন জনকল্যানমূলক সামাজিক কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত এবং একজন ভাল শিক্ষক হিসেবে তার এলাকায় তিনি খুবই জনপ্রিয়। তার বাবাও তাঁর কর্মজীবনে একাধিকবার জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার স্ত্রী জনাব রোজিনা বেগমও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষিকা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares