Main Menu

প্রচলিত আইনে গুপ্ত হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার করা হবে: আখাউড়ায় আইনমন্ত্রী

+100%-

lawministerডেস্ক ২৪:: টার্গেট কিলিংয়ের দ্রুত বিচারের জন্য দেশের প্রচলিত আইনই যথেষ্ট বলে মনে করেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। প্রচলিত আইনেই এসব হত্যাকাণ্ডের দ্রুত বিচার করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘এসবের (টার্গেট কিলিং) জন্য দেশে প্রচলিত যথেষ্ট আইন আছে। এ বিষয়ে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তৎপর আছে। এরই মধ্যে আনসারুল্লাহর এক সদস্যকে ধরা হয়েছে বলে পত্রিকায়ও খবর এসেছে। দেশের প্রচলিত আইনেই এসব হত্যাকাণ্ডের ত্বরিত বিচার করা হবে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আপনারা দেশের জন্য, বঙ্গবন্ধুকন্যার জন্য দোয়া করবেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা যেন দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন সে জন্য দোয়া করবেন।’ মন্ত্রী ঢাকা থেকে সড়কপথে কসবা হয়ে আখাউড়ায় আসেন।

আখাউড়া নাছরীন নবী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এ মাসুদ, আখাউড়ার ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন ইকবাল, কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আরিফুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার মো. আলাউদ্দিন, সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান রাফি, কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনিসুল হক ভূঁইয়া, আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ মো. জয়নাল আবেদীন, আওয়ামী লীগ নেতা রাশেদুল কাওসার জীবন, কাজী আজহারুল ইসলাম. এম এ জি হাক্কানি, আবুল কাশেম ভূঁইয়া, মো. সেলিম ভূঁইয়া, মনির হোসেন বাবুল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে নাছরীন নবী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের পক্ষ থেকে মন্ত্রীর হাতে মানপত্র তুলে দেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দেবব্রত বণিক। এ ছাড়া দুই শতাধিক স্কাউট মন্ত্রীকে অনুষ্ঠানস্থলে ফুলেল অভ্যর্থনা জানান।

এদিকে বিকেলে আইনমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জেলার কসবায় জেলেদের মাঝে জাল বিতরণ করেন।

অনুষ্ঠানে আনিসুল হক বলেন, ‘দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। বর্তমান সরকার দেশের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা মাছে ভাতে বাঙালি। সরকার জেলেদের মাছ ধরায় উদ্বুদ্ধ করতে জাল দিচ্ছে।’সূত্র:: কালের কন্ঠ






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares