Main Menu

আখাউড়া-গংগাসাগর-ধরখার সড়কের বেহাল দশা,ইজিবাইক উল্টে চালক ও যাত্রী আহত

+100%-

আখাউড়া প্রতিনিধি :ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার ব্যস্ততম সড়কের মধ্যে অন্যতম একটি সড়ক আখাউড়া-গংগাসাগর-ধরখার সড়ক।আজ দুপুর আড়াইটার সময়  গংগাসাগর ইউপি’র নয়াদিল গ্রামের জামে মসজিদের সামনে বড় বড় গর্তের কারণে একটি নতুন ইজিবাইক মাল ও যাত্রী সহ উল্টিয়ে রাস্তার পাশে পড়ে আছে।

দূর্ঘটনার শিকার ইজিবাইকের যাত্রী ও চালক  বলেন,রাস্তায় বড় বড় গর্ত ও পানি থাকায় অজান্তেই চাকা গর্তে পড়ে উল্টে যায়।এতে গাড়ির বিভিন্ন অংশ ভেংগে যায় এবং চালক ও যাত্রীরা মারাত্মক আহত হয়। এ সড়কে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার  মানুষ ও যানবাহনের যাতায়াত। আর এই সড়কে কার্পেটিং ও ইট-খোয়া উঠে গিয়ে তৈরি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের। এতে এ পথে চলাচলকারীরা শিকার হচ্ছেন ভোগান্তির।
আজ শনিবার দুপুরে(২০জুলাই)সড়কটি ঘুরে দেখা গেছে, আখাউড়া থেকে ধরখার পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দে ভরা। রাস্তাটির অনেক জায়গায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে এ সড়ক দিয়ে চলছে যানবাহন। আর দেবগ্রাম আমতলি বাজারের সামনে থেকে দক্ষিণ দিকে বিভিন্ন স্থানে রাস্তার সম্পূর্ণ অংশের কার্পেটিং ও ইট-খোয়া উঠে গিয়ে বড় বড় দুটি গর্ত তৈরি হয়ে জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এ দুটি গর্ত তৈরি হওয়ায় তা যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।
বিভিন্ন অটোভ্যান ও সিএনজি চালকরা অভিযোগ করে  বলেন, সড়কের অবস্থা খারাপ হওয়ায় ঘন ঘন যানবাহন নষ্ট হয়। ফলে যাত্রী ও গাড়ির মালিকরা পড়েন ভোগান্তিতে।

কিবরিয়া নামে  এক মোটরসাইকেল চালক বলেন, ‘এই গর্তের কারণে খুব রিস্ক নিয়ে বাইক চালাতে হয়। ভয়ে থাকি কখন ঘটে যায় বড় কোন দুর্ঘটনা।কয়েকদিন পরপর গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক  বলেন, ‘৫-৭ বছর ধরে আখাউড়া থেকে ধরখার পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার রাস্তাটির বেহাল দশা। জোড়াতালি দিয়ে মেরামত করায় কিছুদিন পরই আগের মতো হয়ে যায় সড়ক। প্রায়ই এখানে দুর্ঘটনার শিকার হন চলাচলকারীরা। দ্রুত এ রাস্তার  কাজ শেষ করা না হলে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা।’                                                  
উল্লেখ্য যে,প্রায় সাত-আটমাস আগে এ দুটি রাস্তার টেন্ডার হলেও প্রথম পর্যায়ে কিছু কাজ দৃশ্যমান হলেও এখন কোন এক অদৃশ্য কারণে সংস্কার কাজ চলছে কখনো থেমে থেমে আবার কখনো কচ্ছপের গতিতে৷এর মধ্যে বর্ষাকালও এসে গেছে,ভারি বৃষ্টিতে ও ভারি যানবাহন চলাতে এ দুটি রাস্তা যান চলাচলে প্রায় অনুপযোগী হয়ে গেছে৷প্রতিদিন দু-চারটি ছোট-খাট দুর্ঘটনা ঘটছে অহরহ৷এ রাস্তার পুন: সংস্কার কাজ কবে  শেষ  হবে তা আখাউড়াবাসী জানতে চায়৷                          

সড়কের এ বেহাল দশা নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া)আসনের সংসদ সদস্য, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক গত ইদুল ফিতরের পরের দিন আখাউড়া উপজেলা মিলনায়তনে  বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমি সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও কর্মকর্তাদের সাথে  আলোচনা করবো এবং দ্রুত রাস্তার সংস্কার কাজ শেষ করার  চেষ্টা করব।বর্ষাকাল ও ঘন ঘন বৃষ্টির কারনে কাজে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে।’






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares