Main Menu

মঈন উদ্দিন মঈনকে আ.লীগ এর দলীয় মনোনয়ন দেয়ার দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ১ ঘন্টা অবরোধ

+100%-

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে হাজী মো. মঈন উদ্দিন মঈনকে আওয়ামীলীগ এর দলীয় মনোনয়ন দেয়ার দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ এর অংগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সোমবার বিকাল পৌনে তিনটা থেকে বিকাল পৌনে চারটা পর্যন্ত ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ গোলচত্তর থেকে রেলগেইট পর্যন্ত অবরোধ করে রাখে দলীয় নেতাকর্মীরা। এসময় রাস্তার দুপাশে প্রায় ৫ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে বিকাল ৪টার দিকে অবরোধ তুলে নেয় বিক্ষুব্দ নেতাকর্মীরা। বিকাল সাড়ে চারটার দিকে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

দলীয় নেতাকর্মীরা জানান, ২৫ নভেম্বর সকাল থেকে আওয়ামীলীগ এর দলীয় মনোনয়ন দেয়া শুরু করেন ক্ষমতাসীন দলটি থেকে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৬ টি আসনের মধ্যে ৫টি আসনে আওয়ামীলীগ এর মনোনয়ন দেয়া হলেও জোটের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনটি রেখে দেয় দলটি। এই আসনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ এর সহ সভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মঈন উদ্দিন মঈন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত এই আসনে মনোনয়ন পাওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তাই তৃণমূলের পছন্দ মঈন উদ্দিন মঈনকে দলীয় মনোনয়ন না দেয়ার কারনে ফুসে উঠে দলটির নেতাকর্মীরা। এরই ধারাবাকিতায় সোমবার বিকালে আশুগঞ্জের সর্বস্তরের জনগনের ব্যানারে স্থানীয় রেলগেইটের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে নেতাকর্মীরা। মিছিলটি মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে শেষ হয়। সেখানেই বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। বিকাল পৌনে চারটার দিকে অবরোধ তুলে নিয়ে আশুগঞ্জ গোলচত্তর এলাকায় এক পথসভা করেন নেতাকর্মীরা।

আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সালাহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে পথসভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আবু রেজভী আহমেদ, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য শাহ আলম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ এর সহসভাপতি মো. শাহ আলম, কবির হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগ এর সভাপতি মো মারুফ আহমেদ রনি, সাধারণ সম্পাদক মঈনুল হোসেন মামুনসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ এর নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares