Main Menu

নাসিরনগরে অবৈধ দেয়াল লিখন ও পোস্টারিং প্রতিযোগিতা!

+100%-
এম.ডি.মুরাদ মৃধা,নাসিরনগর প্রতিনিধি : নাসিরনগরের দেয়ালে দেয়ালে শোভা পাচ্ছে নানা রঙের পোস্টার। ঈদসহ নানা উপলক্ষে এসব পোস্টার দেয়ালে সাঁটানো হয়েছে। যেন পোস্টার সাঁটার প্রতিযোগিতা। রাজনৈতিক দল থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও এই অসুস্থ প্রতিযোগিতা থেকে বাদ যায় নি।
সৌন্দর্য রক্ষা ও পরিচ্ছন্নতা বিধানে সরকার ২০১২ এর ২০ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে ‘দেয়াল লিখন ও পোস্টার লাগানো (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১২’ পাস করে।
আইনের ৩ ও ৪ নম্বর ধারা অনুযায়ী সরকার নির্ধারিত স্থান ছাড়া দেয়ালে লিখলে কিংবা পোস্টার লাগালে সেটি দণ্ডনীয় অপরাধ। কোনো ব্যক্তি ওই ধারা অনুযায়ী অপরাধ করলে কৃত অপরাধের জন্য নূন্যতম পাঁচ হাজার টাকা এবং অনূর্ধ্ব ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করবে, অনাদায়ে অনধিক ১৫ দিন পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া যাবে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে নিজ খরচে দেয়াল লিখন বা ক্ষেত্রমতে, পোস্টার মুছে ফেলা কিংবা অপসারণের আদেশ দেয়া যাবে। তবে এসব কথা বর্তমানে শুধু আইনটির কাগজেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। সুষ্ঠু কোনো প্রয়োগ আজও দেখেনি ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষ।
উপজেলা সদরের সাধারন জনগনের সাথে কথা বললে জানা যায়, ঈদ, পুজা, স্থানীয়/সংসদীয় নির্বাচন ও দলীয় কোন দিবস আসলে বিভিন্ন ভবনের দেয়াল পোষ্টার ও দেয়াল লিখনিতে মেতে উঠে এ অপসংস্কৃতি।  পিছিয়ে নেই বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও। তাদের প্রশ্ন এ অপসংস্কৃতি থেকে কবে মুক্ত হবে দেশ।
নাসিরনগরে একপক্ষের লেখা মুছে অন্য পক্ষের লেখা, এক পোস্টারের ওপর আরেক পোস্টার সাঁটানোর অসুস্থ প্রতিযোগিতাও লক্ষ্য করা যায়। সরকারি ভবন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি ও ব্যক্তিমালিকানাধীন দেয়াল-বাদ নেই কোনোটি। ব্যানারে ছেয়ে আছে নাসিরনগরের সবগুলো মোড়। গাছের কাণ্ড ও শাখায় পেরেক ঠুকে সেঁটে দেয়া হয়েছে  সাইনবোর্ড। ডালে ডালে টানিয়ে দেয়া হয়েছে ব্যানার। এসব অনিয়ম দেখার যেন কেউ নেই!
বিশেষ করে উপজেলা বিআরডিবি চেয়ারম্যানের অফিস রুমের দেয়ালে সাটাঁনো আছে শত শত পোষ্টার ও একাধিক বিলবোর্ড।  উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাস ভবনে শিল্পীর রং তুলিতে আকাঁ আছে বিভিন্ন বেসরকারি কোম্পানির বিজ্ঞাপন। যা খুবই আপত্তিজনক।
এ ব্যপারে সংস্কৃতি কর্মী সেলিম আর্টিস্ট বলেন, নাসিরনগরে এখন পোষ্টার কেন্দ্রীক রাজনীতি শুরু হয়েছে। প্রশাসনের কাছে দাবী থাকবে যেন নির্দিষ্ট কোন স্থানে পোষ্টার ও ব্যানার লাগানোর ব্যবস্থা করা হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: লিয়াকত আলী বলেন, বিষয়টি খুবই দু:খজনক। আমি খুব শিগ্রই নাসিরনগরে সরকারী অফিসে পোষ্টার লাগানো বন্ধ করব। তবে সবাইকে সচেতন হতে হবে।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares