Main Menu

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের জনগণের প্রতি মোকতাদির চৌধুরীর নিবেদন

+100%-
সুপ্রিয় বোনেরা ও ভাইয়েরা,সকলকে আমার বিজয়ের মাসের বিপ্লবী সালাম ও সংগ্রামী শুভেচ্ছা জানাই। আশা করি সকলেই আপনারা ভাল আছেন। মাস শেষে নতুন বছরের শুরুতেই জানিয়ে রাখছি নর্ববর্ষের শুভেচ্ছা।
আপনারা অবগত আছেন যে,আগামী ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ রোববার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। শীতের এমনি এক দিনে আপনাদের দোয়া,ভালবাসা আর অকুণ্ঠ সমর্থন নিয়ে ২০১১ তে আপনাদের প্রতিনিধি হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলাম। নানা প্রতিকূল সত্বেও অদ্যাবধি আমি অক্লান্তভাবে আপনাদেরকে সেবাদানের প্রয়াস পেয়ে যাচ্ছি। কতটা সফল হয়েছি এ কাজে তা আপনারই বলতে পারবেন ভাল।আমার তরফ থেকে বলতে পারি যে চেষ্টার কোন ত্রুটি হয়নি। তবে যেহেতু মানুষ ভুলত্রুটি হয়ে থাকতেই পারে,যা আপনারা স্নেহ,মমতা আর ভালবাসা দিয়ে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন,এ আশা রাখি।
সুপ্রিয় স্বজনেরা,
আট বছরের এক নীতি দীর্ঘ সময়ে আমার প্রচেষ্টায় রাস্তাঘাট,ব্রীজ-কালভার্ট,ফ্লাইওভার অথবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে,শিক্ষার উন্নয়নে কি করা হয়েছে তা আজ দৃশ্যমান। বিজয়নগর উপজেলা বাস্তবায়ন ও এর উন্নয়ন কোন কল্প কথা নয়, এক চমৎকার বাস্তবতা। সদর উপজেলা সর্বত্রই উন্নয়ন আজ নয়নাভিরাম দৃশ্য।অবকাঠামো উন্নয়ন, বিদুৎ, স্বাস্থ-সেবা,শিক্ষা ( উপৃবৃত্তি,বিনামুল্যে বই বিতরণ,নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা বা অবকাঠামো উন্নয়ন), দরিদ্র পীড়িত,মানুষের সেবায় সরকারের কর্মপ্রয়াসকে সকলের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার প্রয়াস পেয়েছি আমরা। সদর আর বিজয়নগর থেকে দারিদ্র্য আজ প্রায় নির্বাসিত।
সুপ্রিয় এলাকাবাসী,সড়ক যোগাযোগ আমাদের এলাকায় অভূতপূর্ব কর্মকান্ড সম্পন্ন হয়েছে। শেখ হাসিনা সড়ক (সীমনা ব্রাহ্মণবাড়িয়া তথা বিজয়নগর ও জেলা সদর সংযোগ সড়ক), রামপুর -মনিপুর সড়ক, হেলিডে সড়ক (সদর-আখাউড়া সংযোগ সড়ক) (অনেকগুলো বড় সেতুসহ)আজ এক অনস্বীকার্য বাস্তবতা।
সম্মানিত বোনেরা ও ভাইয়েরা,আপনারা সকলেই জানেন,আমি মিথ্যা আশ্বাস প্রদান করিনা।আমি সৎ ও বাস্তবভিত্তিক কর্মপস্থায় বিশ্বাসী। একটি পরিকল্পিত ও দৃষ্টিনন্দন সদর ও বিজয়নগর গড়ে তোলার যে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছি আমি তা অর্জনে আপনারাই আমার শক্তি সাহস।আপনাদের অকৃত্রিম স্নেহ, মমতা, ভালবাসাই আমার মধ্যে এ বিশ্বাস জন্ম দিয়েছে।
আমি আপনাদের সকলের সহযোগিতায় এই সম্পদকে সন্ত্রাস,চাঁদাবাজ,টেন্ডারবাজ ও ভূমিদস্যু মুক্ত করতে প্রায় সক্ষম হয়েছি।এই এলাকায় জীবনমান উন্নয়নে প্রায় চার হাজার কোটি টাকার কাজ হয়েছে।চার লেনের সড়ক যোগাযোগ,আধুনিক রেল যোগাযোগ সরকারের,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মপ্রয়াসের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। বয়স্ক ভাতা,বিধবা ভাতা,দুগ্ধমাতা ভাতা,মাতৃকালিন ভাতা,প্রতিবন্ধী ভাতা,পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর জন্য নানা প্রকার ভাতা এবং প্রবাসীদের কল্যাণে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের দারিদ্র বিমোচনে এক, কর্মকাযজত।
স্বজনেরা আমার,এমনি এক পেক্ষাপটে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে আমি আপনাদের দোয়া ও ভোট প্রার্থী। যোগ্য মনে করলে পুনরায় আপনারা আমাকে নির্বাচিত করবেন,এই প্রত্যাশা রইল।আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের অশেষ রহমতে নির্বাচিত হয়ে আমি আধুনিক, উন্নত ও সভ্যতার উদাহরণ এক জনপদ হিসেবে গড়ে তোলার কর্মপ্র‍য়াসের ঘোষণা দিচ্ছি।
আমি,আপনার ভালবাসা চাই,দোয়া চাই,ভোট চাই,এবং অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার সুযোগ চাই।ভাল থাকুন সকলে।মঙ্গল হোক আপনাদের।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares