Main Menu

সিভিল সার্জনের পদ স্বাচিপ নেতার দখলে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্বাস্থ্য বিভাগে অচলাবস্থা

+100%-

jugantorব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জনের পদটি এখনও আঁকড়ে ধরে আছেন জেলা স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. শাহআলম। তিনি জেলার আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা। গত ১২ দিন ধরে তিনি জেলা স্বাচিপের নির্দেশে জোরপূর্বক সিভিল সার্জনের পদ দখল করে রাখায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আদেশ থাকা সত্ত্বেও দায়িত্ব নিতে পারছেন না ডা. আবু ছালেহ্ মো. মুসা খান। তবে দায়িত্ব বুঝে নিতে ডা. মুসা খান নিয়মিতই যাচ্ছেন সিভিল সার্জন অফিসে। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত সংগঠন ডক্টর অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগ এনে তাকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হচ্ছে না। এতে করে গত এক সপ্তাহ ধরে সিভিল সার্জন অফিসসহ জেলার স্বাস্থ্য বিভাগে অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বিদায়ী বছরের ২৭ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু ছালেহ্ মো. মুসা খানকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জনের চলতি দায়িত্বের আদেশ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এতে ৩১/১২/২০১৬ তারিখের পর তাকে যোগদান করতে বলা হয়। কিন্তু ২৯ ডিসেম্বর অবসরজনিত ছুটিতে যাওয়া সিভিল সার্জন হাসিনা আকতার দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এবং জেলা স্বাচিপের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. শাহআলমকে। মন্ত্রণালয়ের আদেশ নিয়ে মুসা খান ২ জানুয়ারি সিভিল সার্জন অফিসে যোগদান করতে গেলে শুরু হয় টালবাহানা। দায়িত্বে থাকা সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহ আলম মুসা খানের কাছে দায়িত্ব বুঝিয়ে না দিয়ে নিজের দখলে রাখেন চেয়ার। ফলে ২ জানুয়ারিই স্বাস্থ্য সচিবের কাছে যোগদানপত্র পাঠিয়ে দেন ডা. মুসা খান। তবে সোমবার, ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত ডা. মুসা খানকে সিভিল সার্জনের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হয়নি।
অন্যদিকে, চেয়ার দখলে রাখা ডাক্তার মো. শাহ আলম গত ২৯ ডিসেম্বর দায়িত্ব নেয়ার পর সোমবার (৯ জানুয়ারি) পর্যন্ত ১২ দিনের মধ্যে অফিস করেছেন মাত্র একদিন। তবে ডা. মুসা খান তার চলতি দায়িত্ব বুঝে নিতে নিয়মিত যাচ্ছেন সিভিল সার্জন অফিসে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares