Main Menu

ডেঙ্গু প্রতিরোধে বন্ধুসভার উদ্যোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত প্রাঙ্গণে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান

+100%-

লিমন ভূইয়া :: ‘আমাদের দায়িত্ববোধ ডেঙ্গু করি প্রতিরোধ’ স্লোগানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভা পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচী পালন করেছে। পাশাপাশি ডেঙ্গু প্রতিরোধে আদালত প্রাঙ্গণে মশার ওষুধ ছিটিয়েছেন বন্ধুরা। সোমবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত প্রাঙ্গণে এই পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালান বন্ধুরা।

কেন্দ্রীয় বন্ধুসভার এই কার্যক্রমকে ঘিরে গত কয়েকদিন ধরেই বন্ধুরা এর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। গত রোববার ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ হোসেন ব্যানার প্রস্তুত এবং সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন রুবেল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ বন্ধুসভার আহাবায়ক সোহান মাহমুদ পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো নিয়ে আগে থেকেই স্থান নির্বাচনের জন্য আদালত প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখেন। সর্বস্থরের মানুষ এখানে আসা যাওয়া করে। তাই সেখানে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা করে ডেঙ্গু প্রতিরোধের পাশাপাশি মানুষকে সচেতনও করা যাবে।

সোমবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই বন্ধু মাইনুদ্দিন রুবেল সকল বন্ধুদের ফোন দিতে শুরু করেন। সবাই সকাল নয়টা থেকে আদালত প্রাঙ্গণে উপস্থিত হতে শুরু করে। সকাল সাড়ে নয়টায় বন্ধুসভার সদস্যরা ছড়িয়ে ছিটিয়ে কাজ শুরু করে দেন। মাথার উপর তপ্ত রোধ উপেক্ষা করে বন্ধুরা মনের আনন্দে কাজ করে যান।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে বন্ধুসভার সচেতনামুলক পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার এই কাজে মুখ্য বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজ সঙ্গে অন্যান্য সকল বিচারক ও কিছু সংখ্যক আইনজীবীদের নিয়ে যোগদেন। ১০টার দিকে মুখ্য বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজ হাভে গ্লাভস, মাথায় টুপি ও মাস্ক পরে নিজ হাতে পলিথিনে আবর্জনা তোলা শুরু করেন। এসময় সঙ্গে থাকা অন্যান্য বিচারক ও আইনজীবীরাও আবর্জনা তোলার কাজ করেন। এসময় মুখ্য বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজন বন্ধুসভার সদস্য ও আইনজীবীর সঙ্গে নিয়ে আদালত প্রাঙ্গণে একটি কৃষ্ণচূড়ার গাছ রোপন করেন। এসময় অন্যদের মধ্যে আইনজীবী ফখর উদ্দিন আহমেদ খান, তারেকুল ইসলাম খান, নাছির মিয়া, অসীম কুমার পাল, বন্ধুসভার সাবেক সভাপতি আইনজীবী আব্দুর রহিম ও তারেকুল ইসলাম মৃধা, আইনজীবী জহির উদ্দিনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।
বিচারিক কাজের জন্য বেশিক্ষণ সময় দিতে না পারলেও প্রথম আলো বন্ধুসভার এই ভালো কাজের প্রশাংসা করে সাধুবাদ জানান মুখ্য বিচারিক হাকিম মাসুদ পারভেজ।

পরে সকাল ১০টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সভাপতি লিমন ভূইয়ার সভাপতিত্বে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার এই কাজ পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন রুবেল। এসময় বন্ধুসভার সদস্যরা আদালত প্রাঙ্গনে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার অভিযান চালান। বিভিন্ন জায়গা গড়ে উঠা আগাছা কেটে পরিস্কার করেন বন্ধুরা। পাশাপাশি আদালত প্রাঙ্গনের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকা ময়লা আবর্জনা পলিথিন ব্যাগে ভরে জড়ো করেন বন্ধুরা। পরে পৌরসভা তাদের লোকজন ও একটি ট্রাক্টরে সেসব ময়লা আবর্জনা ভরে সেখান থেকে নিয়ে যান। বন্ধুসভার সদস্যরা পুরো আদালত প্রাঙ্গণ এলাকায় মশার ওষুধও ছিটিয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সহসভাপতি ইকবাল হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরেফিন শোভন ও সাদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান, সমাজ কল্যান সম্পাদক ফাহমিদা আক্তার, সদস্য শুভ্র আবীর, আনিতা সুলতানা, আবু বক্কর সিদ্দিক, নাছির উদ্দিন সরকার, মো. সানাউল্লাহ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরকারি কলেজ বন্ধুসভার আহবায়ক সোহান মাহমুদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে বন্ধুসভার সদস্য সানবি রহমান, এ বি সিদ্দিক, ফারহানা মেহেজাবিন, মহিউদ্দিন আহমেদ, মো. সোহাগ, বিজয় মল্লিক উপস্থিত ছিলেন। বন্ধুসভার এই কাজে উপস্থিত থেকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন প্রথম আলোর ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি শাহাদৎ হোসেন।

এদিকে বন্ধুসভার এই কাজে আদালতের মুখ্য বিচারক হাকিম মাসুদ পারভেজসহ সকল বিচারকরা মুগ্ধ হয়েছেন। মুখ্য বিচারক হাকিম মাসুদ পারভেজ মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতের পক্ষে ব্যতিক্রমধর্মী এই ভালো কাজ ও উদ্যোগের জন্য প্রথম আলো ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভাকে একটি শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করেন। প্রথম আলোর ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি শাহাদৎ হোসেন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সভাপতি লিমন
ভূঁইয়া বন্ধুসভার পক্ষে এই স্মারক গ্রহন করেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন রুবেল বলেন, আদালত প্রাঙ্গণে সর্বস্থরের লোকজন বিচরণ ঘটে। তাই সেখানে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজের পাশাপাশি মশার ওষুধ ছিটানো হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা এই কাজে আমাদের সহযোগিতা করেছে। এজন্য তাদের কাছে কৃতজ্ঞা। তারা জানান, বন্ধুসভার এই কাজ আরো চলবে।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares