Main Menu

মোঃ ইয়াসিন মিয়া ও খন্দকার এনামুল হক’র খুনের সঙ্গে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় আনার দাবী

পুলিশ সুপার বরাবর শিক্ষার্থীদের স্মারকলিপি প্রদান

+100%-

রোববার দুপুর ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের পক্ষ থেকে পুলিশ সুপার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে। স্বারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় যে, বিগত ১ মার্চ ২০১৭ তারিখে পরিকল্পনা মাফিক মোঃ ইয়াসিন মিয়া ও খন্দকার এনামুল হককে খুন করার উদ্দেশ্যে ডেকে নিয়ে যায়। সালিশের কথা বলে জগন্নাথপুর সেন্টো মেম্বার এর বাড়িতে নেয়। সেখানে তাদের দুজনকে ধারালো ও ভোতা অস্ত্র দিয়ে মাথাসহ সারা শরীরে নির্মমভাবে আঘাত করে। মোঃ ইয়াসিন মিয়া ও খন্দকার এনামুল হক এর মৃত্যু নিশ্চিত করবার জন্য তাদের দু’জনকে গোড়ালী বরাবর দুই পায়ের রগ কেটে দেয়। এইভাবে তাদের নৃশংসভাবে খুন করে। তারপর পরিকল্পিত খুনের ঘটনা আড়াল করার জন্য ডাকাতির প্রস্তুতিকালে জনগণ দ্বারা ধৃত হয়ে গণ পিটুনীতে নিহত বলে নাটক সাজায়।

স্মারকলিপিতে স্মাক্ষর করে মুহয়ী শারদ সুরুভী সুলতানা বিথী, আরিফুল ইসলাম, নাফিজুল ইসলাম সাদ, মুনিয়া কবির, তাওহীদা মীম, রিফতি আল জাবেদ, কিবরীয়া, অর্নব, সূচি, তুসি, রাবিয়া, ইকরা, নাদিম, জ্যোতি।

পুলিশ সুপার এর পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন সহকারী পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) আবু সাঈদ। স্মারকলিপি প্রদানকালে মোঃ ইয়াছিন মিয়া ও খন্দকার এনামুল হক’র খুনের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত সকলকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান উপস্থিত ছাত্রছাত্রী।  স্মারকলিপি গ্রহণকালে সহকারী পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) আবু সাঈদ তদন্ত সাপেক্ষে সকল অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা কমিউনিষ্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম ও সহ সাধারণ সম্পাদক আসমা খানম।
এদিকে ছাত্র ছাত্রীরা সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণভাবে কার্যক্রম পরিচালনার মুহয়ী শারদকে আহবায়ক, রিফতি আল জাবেদ ও ফাহমিদা তিথিকে যুগ্ম আহবায়ক এবং সুরুভী সুলতানা বিথীকে সদস্য সচিব করে একুশ সদস্য বিশিস্ট শিক্ষার্থী সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়।প্রেস রিলিজ






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

Shares