Main Menu

আশুগঞ্জ থানার ওসির অপসারণ চেয়ে ৭ ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন

+100%-


জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদের অপসারণ দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার সাত ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানরা।

শনিবার (০৪ জুলাই) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব হলরুমে শারীরিক দূরত্ব মেনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সালাউদ্দিন।

তিনি বলেন, ওসি যোগদান করার পর থেকে উপজেলার জনপ্রতিনিধিসসহ সর্বসাধারণের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে আসছেন। পর্যায়ক্রমে এ অবস্থার শিকার হয়েছেন তালশহর ইউপি চেয়ারম্যান আবু শ্যামা, তারুয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইদ্রিস হাসান, চরচারতলা চেয়ারম্যান জিয়া উদ্দিন খন্দকার। এছাড়া আরো অনেক নিরীহ জনগণ তার অসদাচরণের কারণে লাঞ্ছিত হয়েছেন।

সম্প্রতি স্থানীয় উপজেলা চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশকে কেন্দ্র করে এক সাংবাদিককের বাসায় গভীর রাতে প্রবেশ করে দুর্ব্যবহার শুরু করেন। ওই সাংবাদিক আমার ইউনিয়নের বাসিন্দা হওয়ায় আমাকে বিষয়টি অবহিত করলে আমি সেখানে পৌঁছে দুর্ব্যবহার না করতে অনুরোধ করি। এ সময় ওসি আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন। এমনকি আমাকে শায়েস্তা করার হুমকি দিয়ে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাও করেন। তবে স্থানীয় লোকজনের বাধার মুখে তার সে চেষ্টা সফল হয়নি। আমি একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার সঙ্গে এরূপ ব্যবহার অনাকাঙ্ক্ষিত।

তাই আপনাদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্টমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিপির দৃষ্টি আকর্ষণ করে আমরা অবিলম্বে ওসি জাবেদ মাহমুদের আশুগঞ্জ থানা থেকে অপসারণের দাবি জানাচ্ছি।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদ এ অভিযোগ অস্বীকার করে উল্টো সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন সরকারি কাজে বাধা দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।

জেলা পুলিশ সুপার আনিসুর রহামান বলেন, তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।